Thursday, 11 May 2017

ধর্ষনবান্ধব রাষ্ট্রে শবেবরাত


শেষ কবে একটা কবিতার বই কিনেছেন আপনারা বলতে পারছেন না।শেষ কোন বইটি পড়েছেন, তা যারা কবি, গল্পকার, শিল্পি দাবি করছেন তাদের স্টেটাসেও জানা যাচ্ছে না।পাঠ্য বই, ভয় দেখানো ধর্মের বইয়ের বাইরে শিশুর হাতে নিয়মিত শিশু সাহিত্যও তুলে দিয়েছেন কি, বোঝা যাচ্ছে না, তাহলেতো অন্যদের খোজ দিতেন।

প্রমিত বা অপ্রমিতে যারা নিজের সাহিত্য চর্চা নিয়ে বলছেন, তাও পড়ে পাওয়া খবরের প্রতিক্রিয়া, কিন্তু তার আগের মননজাত শৈলির কোন ছাপ তাতে নাই।যে ছড়াগুলো নিয়ে মাতামাতি তাও পড়ে পাওয়া খবরের প্রতিক্রিয়া।আপনাদের ভেতর ধর্মচর্চা কিন্তু বেড়েছে, সাথে কদাচারও।সাহিত্যচার্চাকারিরা, শিল্প অফিসারেরা, কথিত শিল্পিরা, কথিত এক্টিভিষ্টরা যেসব বইপত্র কেনে তাও কোন বস বা দাদাকে সন্তুষ্ট করতে।চারুকলা ইন্সটিউটে যে ছেলেমেয়েরা ৩০ বছর আগে আঞ্চলিকতার অনুশিলন করেছে, তাদের আজকের সাইবার আচরনে আঞ্চলিকতাকেই পরিনত চারুকলা বলে প্রতিভাত হচ্ছে, যার সাথে যোগ হয়েছে চাপানো ধর্মবোধ।জ্যেষ্ঠ কবি বলে পরিচিত কিছু বয়োবৃদ্ধ স্বার্থগৃধুর সাথে মিলে জাতিয় কবিতা পরিষদের নেতৃত্ব দিচ্ছে আমাদেরই এক বন্ধুরত্ন, যেখানে আমাদের প্রজন্মের কোন কবি আমন্ত্রন পায় না এবং যা পুরোপুরি ছড়কারদের দখলে।অপরদিকে আল মাহমুদের সমঝদার পাঠকদের প্রিয় চরনগুলোর দিকে তাকিয়ে দেখুন, সেখানে নারিকে রতিযন্ত্র ছাড়া আর কোন বিবেচনা দেয়া হয় নাই।চারুকলা ও কবিতামঞ্চের এহেনো অবস্থা মানে ধমনি ও হৃদপিন্ডে বড়ধরনের গড়বড় হয়েছে।

শিল্পকলাতে লাখেরাজ করে বস্তাপচা যেসব নাটক মঞ্চায়ন হয় তাতেও মাফিয়া কারসাজিতে মেধাবিদের হটিয়ে দেয়া হয়।রবীন্দ্রচর্চাকারিরা রবীন্দ্রনাথের নিহিত শিক্ষা ভুলে পুরো ব্যাপারটাকে বানিয়েছে জাতে ওঠার এবং অন্যকে অবজ্ঞা করবার জ্ঞানপাপে।আরেকটা ব্যাপক কুপমন্ডুকের দল হচ্ছে আবৃতি সমন্বয় পরিষদ, যারা আবৃতি উপযোগি কবিতার নামে গত সিকি শতাব্দি মননের চর্চাকে নিয়ে গেছে মননের গুমখুনের অনুশিলনে।বাংলা একাডেমিতে গিজগিজ করছে মননের গুমখুনকারিরা।মিডিয়া থেকে মনন আসবে না। তাহলে সুলতান সুলেমানের ধাক্কায় কাত হওয়া চ্যানেল শিল্পিরা শহিদ মিনারে এসে মাতম করতো না।কিছুদিন আগে প্রজন্ম ৭১ এর সংগঠকেরা তাঁদের গল্পপাঠ অনুষ্ঠানে হাতে গোনা দর্শক নিয়ে আক্ষেপ করেছে।বিভিন্ন মঞ্চের দখলদারিতে ঘুরেফিরে একই লোকজন দেখতে, দেখতে লোকজন আস্থা হারিয়েছে এমন কি সত্যিকার গল্পগুলোতে।আর আপনি মুক্তিযুদ্ধ, রবীন্দ্রনাথ, আর ধর্ম দেখিয়ে ঘুরেফিরে নিজের পরিবারের কথা বলতে থাকলে তার শোভনতাও প্রশ্নসাপেক্ষ হয়ে ওঠে।

মনন তৈরি হয় সাহিত্যের পাঠ থেকে।খেয়াল করে দেখুন সাহিত্যের সাথে, শিল্পের সাথে জড়িত সংগঠন ও ব্যাক্তিরা তাদের স্বার্থের সাথে ডান, বাম রঙ মিশিয়ে যেসব তত্ত্ব হাজির করছে তাতে আমাদের দৃড় বিশ্বাস জন্মাবে যে এই দেশের খালে, বিলে কচুরিপানাও ছড়িয়ে দিয়েছে সাম্রাজ্যবাদিরা।মননের মঞ্চ সঙ্কোচনের ফলে ধর্ষণের মঞ্চের বিস্তার ঘটছে।কি ইস্যুতে আপনি চায়ের কাপে ঝড় তুলছেন, তার তলানিতে তাকালে আপনি বুঝবেন যে ধর্ষিতার প্রতি, বিচারের দাবির চেয়েও আপনার ভেতরে অন্য কোন অবদমনের সুড়সুড়ি কাজ করছে।

মননের মঞ্চগুলোতে মননকে ধর্ষণের, মননকে গুমখুনের যে প্রাতিষ্ঠানিক যজ্ঞ পত্র, পুষ্পে মঞ্জরিত, তা থেকেই ধর্শনবান্ধব রাস্ট্রের বিকাশ।এখানে রাস্ট্র বিমুর্ত, নৈর্ব্যাক্তিক।যারা রাস্ট্রকে বদলে ব্যাক্তির দায় গৌন করতে চায়, তারা মননের চর্চাকেও এক রৈখিক শর্তে ফেলে দিতে চায়।তাদের মত না বললে, না চললে তারা আপনাকে নেবে না।রাস্ট্র নিয়ে মাতামাতি করনেওয়ালারা যে তকমাতেই আসুক, তাদের ক্ষ্মতায়নের পথে বেশুমার মননের হত্যাযজ্ঞ।এই হত্যাযজ্ঞে বিশেষজ্ঞরা এখন ঐতিহাসিক ভাবে এতটা সিদ্ধিলাভ করেছে যে গিরগিটির মত রঙ বদলে ঢুকে যাচ্ছে যে কোন মননের মঞ্চে, আঞ্চলিকতার অজুহাতে, সংস্কৃতির অজুহাতে, ধর্মের অজুহাতে, রাজনিতির অজুহাতে, আর তাদের সহায় হচ্ছে মিডিয়া।

বাল্য বিবাহ নিরোধ আইন নবায়ন করে সম্প্রতি যখন মেয়েদের আইনি বিয়ের বয়স ১৬তে নামানো হলো, তখন কিন্তু এই মিডিয়া, এই সাংস্কৃতিক মঞ্চগুলো সক্রিয় প্রতিরোধ গড়ে তুলে নাই!একই ভাবে শিশু শিক্ষার কারিকুলামে হেফাজতি দাবিতে হিন্দুত্বের অভিযোগে ব্যাপক রদবদলেও সাংস্কৃতিক মঞ্চগুলো নিরব থাকে।এই রদবদলগুলো নৈর্ব্যাক্তিক রাস্ট্রের হয়ে ব্যাক্তি করেছে, যে পদবি টিকিয়ে রাখতে নিরব থেকেছে সেও ব্যাক্তি!

ধর্শনবান্ধব রাস্ট্রের লাঠিয়াল হচ্ছে পুলিশ এবং তার মুখপত্র হচ্ছে মিডিয়া।অপরাধ সঙ্কোচনে যে ব্যাক্তিত্বের উন্মেষ, মননের বিকাশ ভুমিকা রাখে তার  সাথে এই মিডিয়া ও পুলিশের বিরোধ।আবার এই মিডিয়ার পেছনে যে বিপনন সংস্থাগুলো ছড়ি ঘোরাচ্ছে তারাও ব্যাক্তির মননকে দেখছে হুমকি হিশেবে।এহেনো পরিপ্রেক্ষিতে কিছু সচেতন মেধাবি গরিব তরুন বা তরুনির সাথে বিবাহ বন্ধনে আসছে কিছু বড়লোক রাজনিতিক বা মিডিয়া/বিপনন পরিবার।এই বিবাহ বন্ধনের পর ঐ কথিত সচেতন তরুন বা তরুনি নামছে মননের গুমখুনে, নিরবতার দেয়াল তুলে ব্যাক্তিত্বকে একঘরে করবার কারসাজিতে, কিন্তু ভান করছে মননের, আর পারিবারিক বিপনন সংস্থা সেই ভান, ভনিতাকে চটকদার মোড়কে ভরে বাজারজাত করছে।মুশকিল হচ্ছে বাজারও সেই টেলিভিশান ফ্রেম নোংরা করা, কান পচানো বাজে উচ্চারবের মোড়কগুলোকে প্রত্যাখ্যান করেছে।আমরা এখন প্রশ্ন তুলতেই পারি 'রেডিও স্বাধিন' কতটুকু স্বাধিন, 'ইন্ডিপেন্ডেন্ট' পত্রিকা  কতটুকু ইনডিপেন্ডেন্ট, 'মুক্তমনা ব্লগ' কতটুকু মুক্তমনা?

এসব চক্রের বাইরে ব্যাক্তির মনন, দৃষ্টিভঙ্গি, নবায়িত অধিকারবোধ, সুক্ষ চিন্তা, সহজ নান্দনিকতা ধরে রাখছে আবহমান সাহিত্য।আবহমান হচ্ছে একটা পরম্পরা, যা ধ্রুপদকে ধারন ও লালন করে সমকালকে নবায়ন করে।আমাদের মিডিয়ার সে ক্ষ্মতা কখনো আসবে না, কারন এর নেতৃত্ব আত্মঘাতিভাবে গোষ্ঠিস্বার্থ নির্ভর, সাংস্কৃতিকভাবে সামন্তবাদি।বিনোদন এবং মননের মঞ্চকে আমরা যত সাহিত্যমুখি করবো, তত এই সামন্তিয় জগদ্দল থেকে বেরোবার পথ প্রশস্ত হবে।


চয়ন খায়রুল হাবিব
১২/০৫/১৭
ঢাকা

Sunday, 30 April 2017

প্রেমিকার খই প্রেমিকের জামরুল


গাছের নিচে নিয়মিত খই ছিটালে
জামরুল তুমুল সুমিষ্টতায় গান গায় ভৈরবা

শুকনা না কি ভিজা খই দিবা

Thursday, 27 April 2017

প্রবনতা ও পরিচ্ছন্নতা

পরিচ্ছনতার নিরিখে ঢাকা ক্যান্টনম্যান্ট, কন্ঠশীলন, বিশ্ব সাহিত্য কেন্দ্রের পাশাপাশি, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় ক্যাম্পাস, শিল্পকলা, বাংলা একাডেমি, গন গ্রন্থাগার, সওরোওয়ার্দি উদ্যান, জাতিয় হাসপাতাল ইত্যাদি জায়গাগুলো তুলনা করলে আমরা কি পাচ্ছি?

Thursday, 2 March 2017

পাবলিকের পুলিশ ও প্রাইভেটের পেটোয়া


(দৃষ্টান্ত হিশেবে প্রাইভেট ইউনির গুনধর ছাত্রেরা আইন নিজেদের নরম হাতে তুলে নিতে পারে এবং বসুন্ধরা গ্রুপের  নধর মালিক ও তাদের নিরপত্তা সংক্রান্ত পদস্থ কিছু কর্মকর্তাকে ঢাকার লাইটপোস্টে যে তারের নাগরদোলা, তাতে লটকায় রাখতে পারে।লটকায় রাখতে বলেছি, ফাশি দিতে বলি নাই।)

Tuesday, 28 February 2017

সিন্ড্রেলার কাচের খড়ম

ভলুয়া সুন্দরি ও কমলা সুন্দরির আখ্যান অবলম্বনে

নাচঘরে কাচের খড়ম ভাঙ্গিয়া
সিন্ড্রেলা চলিয়া গেলেন গটগটাইয়া

এদিকে রাজকুমার কান্দিয়া হাসিয়া চিল্লাইয়া
ভাত খায় থালাতে শুকনা মরিচ ডলিয়া

কবে আবার আসিবেন সিন্ড্রেলা  ফিরিয়া
চিড়িয়াখানাতে যে যার মত রঙ্গিলা কাকাতুয়া

Sunday, 26 February 2017

শাওন রাতে যদি সেন্সরের নিরবধি



সন্তানের সাথে হুমায়ূন আহমেদ, মেহের আফরোজ শাওন
''শাওন রাতে যদি স্মরণে আসে মোরে
বাহিরে ঝড় বহে নয়নে বারি ঝরে।।

ভুলিও স্মৃতি মম নিশিথ স্বপন সম।
আঁচলের গাথা মালা ফেলিও পথ পরে
বাহিরে ঝড় বহে নয়নে বারি ঝরে।।
ঝরিবে পূবালী বায় গহন দূর বনে
রহিবে চাহি তুমি একেলা বাতায়নরে...''